Musa Man with the Golden Gunsরহস্যময় পুরুষ ড. মুসা বিন শমসের। সব সময় তিনি আলোচনায় থাকতে পছন্দ করেন। ব্রিটেনের বিরোধীদলের নির্বাচনী তহবিলে একবার ৫০ লাখ পাউন্ড অনুদান দেওয়ার ঘোষণা দিয়ে তিনি বিশ্ব মিডিয়ায় আলোচনায় আসেন। রাজকীয় জীবনযাপন ও বিপুল ধনসম্পদের মালিক মুসা আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও ব্যাপক আলোচিত।

সম্প্রতি দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) তার বিত্তবৈভব ও বিদেশে অর্থ পাচার নিয়ে অনুসন্ধানে নামে। তাই আবারো নতুন করে আলোচনায় এলেন তিনি। ১৯৯৮ সালে বিশ্বখ্যাত লন্ডনের সানডে টেলিগ্রাফের ১৭ মে সংখ্যায় ‘ম্যান উইথ দ্য গোল্ডেন গানস’ শিরোনামে হাইলাইটস হয়েছিলেন বাংলাদেশের এক ধনকুবের। টেলিগ্রাফের ওই সংখ্যাটিতে বাংলাদেশি ধনকুবেরকে নিয়ে লেখা হয়েছিল ব্যতিক্রমী এক প্রচ্ছদ কাহিনী। রিপোর্টে বিশ্বব্যাপী বিশেষ করে পশ্চিমা জগতে দারুণ আলোড়ন তোলেন মুসা বিনা শমসের।প্রচ্ছদ কাহিনীতে টেলিগ্রাফের বিশেষ প্রতিনিধি নাইজেল ফার্নডেল লিখেন, বিশ্বের প্রথম সারির এই অস্ত্র ব্যবসায়ী পৃথিবীর সর্বত্র বিশেষ করে পাশ্চাত্য সমাজে ‘প্রিন্স অব বাংলাদেশ’ বলে খ্যাত।

বিশ্বখ্যাত এই ধনকুবের আর কেউ নন, তিনি ড. মুসা বিন শমসের। যাকে বিশ্বের সর্বোচ্চ মহল ও দরবারে সম্মানিত ‘প্রিন্স মুসা’ বলেই সম্বোধন করা হয়।

২০১০ সালে তিনি আবার তোলপাড় তোলেন পশ্চিমা জগতে। সাত বিলিয়ন ডলার সুইস ব্যাংকে আটকে যাওয়ার খবরে তিনি আবারো আলোচনায় আসেন। এ অ্যাকাউন্ট জব্দ করেছে ব্যাংক কর্তৃপক্ষই। বলা হয়েছে, মুসা বিন শমসেরের ‘লেনদেন অনিয়মিত’। টাকা তুলতে না পারার কারণ ১ কোটি ডলার দামের একটি মন্ট বাঙ্ক কলম। ফ্রান্সে তৈরি ওই কলম মাত্র একটিই তৈরি করেছে নির্মাতা কোম্পানি। ২৪ ক্যারেট স¡র্ণে তৈরি কলমটিতে রয়েছে ৭৫০০টি হীরকখন্ড। এক কোটি ডলারের বেশি লেনদেনের কোন ব্যবসায়িক চুক্তি হলেই নাকি মুসা বিন শমসের ওই কলম দিয়ে সাক্ষর করেন।আর প্রিন্স মুসা বিশ্বাস করেন, এ কলম দিয়ে যে ব্যবসায় স্বাক্ষর করবেন তা সফল হবেই।

সারা বছরই কড়া প্রহরায় এ কলমটি রক্ষিত থাকে সুইস ব্যাঙ্কের ভল্টে। প্রয়োজন হলে সর্বোচ্চ নিরাপত্তায় ওই কলম নিয়ে যাওয়া হয় নির্দ্দিষ্ট স্থানে। আবার সেভাবে ফেরত নিয়ে আসা হয়। কিন্তু সম্প্রতি ব্যাংক কর্তৃপক্ষ ওই কলমটি তুলতেই বাধা দিয়েছে তাকে। আর এ কারণে টাকাও তুলতে পারেননি তিনি। কলম তুলতে যাওয়ার পরই তিনি জানতে পারেন সুইস ব্যাংেক গচ্ছিত তার সকল সম্পদই জব্দ করা হয়েছে।

পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সস্ত্রীক মুসা বিন শমসের (দুই ছেলে ও তাদের স্ত্রী, মেয়ে ও তার জামাই)২০১০ সালের ৯ নভেম্বর আইরিশ ডেইলি মিরর এবং ১৪ নভেম্বর বৃটেনের দ্য উইকলি নিউজ এ নিয়ে এক প্রতিবেদন প্রকাশ করে বলে জানায় ব্রিটেনের ক্যাম্পেইন মিডিয়া নামে এক প্রতিষ্ঠান। খবরে মুসা বিন শমসেরের বিচিত্র বিলাসবহুল ও বর্ণাঢ্য জীবনের বৃত্তান্ত তুলে ধরা হয়। তিনি যে রোলেক্স ঘড়িট ব্যবহার করেন, তার দাম ৫০ লাখ ডলার। ওই বিশেষ ঘড়ি মাত্র একটিই তৈরি করেছে নির্মাতা কোম্পানি। বেশভূষা ও অঙ্গসজ্জায় তিনি ব্যবহার করেন ১৬ ক্যারেটের একটি রুবি। দাম ১০ লাখ ডলার। আরও একটি চুনি পরেন ৫০ হাজার ডলার দামের। এ ছাড়াও পরেন ৫০ হাজার ডলার দামের একটি হীরা ও ১ লাখ ডলার দামের একটি পালা (এমেরাল্ড)। প্রতিদিন তিনি গোসল করেন গোলাপ পানিতে। নিত্য দিনের চলাফেরায় অথবা বিশেষ কোন অনুষ্ঠানে তিনি ৭০ লাখ ডলারের বেশি মূল্যের গহনা-অলঙ্কার পড়েন।

প্রিন্স মুসা ১৯৯৪ সালে তার বন্ধু ব্রিটেনের বিরোধী দলীয় নেতা (পরে প্রধানমন্ত্রী) টনিব্লেয়ারের নির্বাচনী ফান্ডে ৫০ লাখ পাউন্ড অনুদান দেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করে বিশ্বদরবারে আলোচনায় আসেন। বিদেশি নাগরিক হওয়ায় টনি ব্লেয়ার অবশ্য সে অনুদান গ্রহণ করেননি। নানা কর্মকান্ডের মাধ্যমে এ ব্যবসায়ী মাঝেমধ্যেই বিশ্ব মিডিয়ায় আলোচনার বিষয়বস্তু হয়ে উঠেছেন। লোক মুখে আছে তার বিচিত্র ও বর্ণাঢ্য জীবনের অনেক চমকপ্রদ কাহিনী।

১৯৯৭ সালে মুসা বিন শমসের তার ইউরোপিয় সদর দপ্তর হিসেবে আয়ারল্যান্ডের কালকিনি দুর্গ কিনতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তিনি সফল হননি।প্রিন্স মুসা বিন শমসেরের বাসভবনপ্রিন্স মুসার বিশ্বখ্যাতি সম্পদশালী ধনকুবের হিসেবে। তবে কেউ জানেন না, কত তার ধনসম্পদ। ধারণা করা হয়, তিনি বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ধনীদের একজন । তার জীবন-যাপনের কথা ও কাহিনী দেশে-বিদেশে ছড়িয়ে আছে কিংবদন্তির মতো। লোকের মুখে-মুখে আছে তার বিচিত্র ও বর্ণাঢ্য জীবনের অনেক চমকপ্রদ ও চাঞ্চল্যকর ঘটনা।

বৃটেনের দ্য উইকলি নিউজ ‘গোল্ডফিঙ্গারস্! ম্যান উইথ দ্য মিডাস টাচ ওন্ট জাস্ট রাইট অব ফ্রোজেন অ্যাসেটস’ শীর্ষক প্রতিবেদনে লিখেছে, মুসা বিন শমসের বিপুল ধনসম্পদের অধিকারী হয়েছেন আন্তর্জাতিক অস্ত্র ব্যবসা, তেল বাণিজ্য ও কেনাবেচার দালালির মাধ্যমে। ড্যাটকো নামে রয়েছে তার জনশক্তি রপ্তানির ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। আইরিশ ডেইলি মিরর ‘ম্যান উইথ দ্য গোল্ডেন পেন’ শীর্ষক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, ছয়জন দুর্ধর্ষ দেহরক্ষী ছাড়া তিনি কোথাও যান না, চলাফেরা করেন না।

কিছু দিন আগে মুসা বিন শমসেরের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের তথ্য চেয়েছিল বাংলাদেশ ব্যাংক। মুসা বিন শমসেরের ব্যাংক অ্যাকউন্টের তথ্য চেয়ে সকল তফসিলী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের কাছে চিঠি দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। শুধু এ ব্যবসায়ী নয়, এর সঙ্গে জড়িত স্বার্থসংশ্লিষ্ট ব্যাংক হিসেবেরও তথ্য ৭ কার্যদিবসের মধ্যে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ বিভাগে জানানোর জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। অর্থ পাচার সন্দেহে এ নির্দেশ দেওয়া হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ বিভাগের যুগ্মপরিচালক একেএম এহসান স্বাক্ষরিত চিঠিতে ব্যাংকগুলোকে এ নির্দেশনা প্রদান করা হয়।তখন জানা গিয়েছিল, মুসা বিন শমসের ব্যাংক হিসেব খোলার সময় গ্রাহক পরিচিতি (কেওয়াইসি) সম্পূর্ণভাবে প্রদান করেননি। ফলে কেওয়াইসির দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে দেশ থেকে অর্থ পাচার করা হতে পারে মনে করা হয়। অর্থ পাচারের সন্দেহেই মুসা ও তার সঙ্গে জড়িত সকলের ব্যাংক হিসেব লেনদেনের তথ্য চেয়েছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ওই চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, প্রিন্স মুসা বিন শমসেরের পিতার নাম শমসের আলী মোল্লা, জেলা, ফরিদপুর। বর্তমান ব্যবসায়িক ঠিকানা, বাড়ি নম্বর-৫৭, রোড নম্বর-১, ব্লক-১, বনানী, ঢাকা-১২১৩।

সম্প্রতি বাংলাদেশের একটি অর্থনীতি বিষয়ক ম্যাগাজিন পত্রিকায় বলা হয়, ’৭০ দশকের মাঝামাঝি বহির্বিশ্ব প্রাচ্যের এক অল্প বয়সী যুবকের ধুমকেতুর মতো বাণিজ্যিক উত্থান দেখে বিস্ময়ে হতবাক হয়েছিল। সৌদি আরব এবং কাতার প্রবাসী খ্যাতিমান এই বাংলাদেশি ব্যবসায়ীর উত্থান সত্যিই উল্কার মত ঝলসে উঠেছিল। আরব্য রজনীর গল্প-কাহিনীর মতো তার বিস্ময়কর জীবন-কথা নিয়ে রচিত উপাখ্যান ’৮০ দশকের বিশ্ব-গণমাধ্যমে বারবার শিরোনাম হয়।

পশ্চিমা বিশ্বে দারুণ সাড়া জাগানো বাংলাদেশি এই খ্যাতিমান অস্ত্র-ব্যবসায়ী যেন রূপকথার রাজপুত্রের মর্যাদাই লাভ করেন।জানা যায়, তিনি বাংলাদেশের শিক্ষিত ও পেশাদার নর-নারীদের জন্য ইটালীতে কাজের সুযোগ করে দেন। বাংলাদেশের ডিপ্লোমা নার্সিং কাউন্সিলের সনদ আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভের বিষয়ে তার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। তারই সৌজন্যে দেশের নার্সদের ইতালী ছাড়াও অন্যসব ইউরোপীয় দেশে কর্ম-সংস্থানের পথ সুগম হয়েছে। বলা হয়, বাংলাদেশি জনশক্তির জন্য ইউরোপীয় স্বর্ণ-দ্বার মুসার আপ্রাণ প্রচেষ্টায়ই উন্মোচিত হয়েছে। প্রিন্স মুসা সত্যিই এক রহস্যময় ব্যক্তি। তার অনেক কিছুই আমাদের অজানা।

প্রিন্স মুসার প্রাসাদ : রাজধানীর অভিজাত গুলশান এলাকার সুরম্য প্রাসাদে মুসার বসবাস। প্রাসাদের সাজসজ্জাও চোখধাধানো। লিভিংরুমসহ প্রাসাদের গুরুত্বপূর্ণ স্থানের ছাদ অবধি শোভা পাচ্ছে বড় বড় দ্যুতিময় অসংখ্য ঝালর। ঘরগুলোর মেঝে মহামূল্যবান কার্পেটে মোড়া। লিভিংরুমের আকর্ষন আরো বাড়িয়ে দিয়েছে সুপরিসর ডাইনিংস্পেস। সব মিলিয়ে প্রাসাদটি পরিণত হয়েছে স্বপ্নপুরীতে।

ফাইভ স্টার ফ্যামিলি : মুসার পরিবারকে বলা হয় দেশের একমাত্র ফাইভ স্টার ফ্যামিলি। কারণ, তার বাসার স্টাইল-আয়োজন কর্মকান্ড সবকিছুই ফাইভ স্টার মানের।

প্রিন্স মুসা তিনটি বুদ্ধিদীপ্ত ও মেধাবী সন্তানের পিতা। তারা হলেন জাহারা বিনতে মুসা ন্যান্সী, হাজ্জাজ বিন মুসা ববি ও আজ্জাত বিন মুসা জুবি। তাদের প্রত্যেকেই যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন বিখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করেছেন। ন্যান্সী বিয়ে করেছেন শেখ ফজলে ফাহিমকে। অক্সফোর্ড স্কলার ববি বিয়ে করেছেন ব্যারিস্টার রাশনা ইমামকে। আর জুবি বিয়ে করেছেন সুমী নাসরিনকে।

হাজ্জাজ বিন মুসা ববি সম্পর্কে একটি কথা না বললেই নয় যে, তরুণ বয়সেই অভূতপূর্ব সাফল্য তার ঝুড়িতে। তিনি জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান, সাবেক রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের বিশেষ উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োজিত আছেন।

প্রিন্স মুসার ব্যবহৃত জিনিসপত্র : জানা যায়, হীরকখচিত যে জুতা পরেন তার প্রতি জোড়ার মূল্য ১ লাখ ডলার। তার সংগ্রহে রয়েছে রত্নখচিত হাজারো জুতা। তার পরনের কয়েকটি স্যুট স্বর্ণসুতাখচিত। ভারতীয় দৈনিক দ্য হিন্দুতে এ নিয়ে একটি প্রতিবেদনও প্রকাশিত হয়। প্রতিবেদনে সাংবাদিক রাশিদা ভাগৎ লিখেন, তিনি প্রতিদিন স্নান করেন নির্জলা গোলাপ জলে। যার পোশাক, পছন্দ-অপছন্দ বৃটেনের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী স্যার এন্থনি ইডেনের মত। ঊনবিংশ শতাব্দির সেরা ফ্যাশনরাজ বিউব্রামেল এর সাথেই তার কেবল তুলনা চলে।ফিলিপাইনের ফাষ্ট লেডি ইমেল দ্য মারকোসের ওয়্যারড্রব ভরে থাকত শতশত জোড়া সৌখিন জুতোয়। মুসা বিন শমসেরের বিলাসিতা তার চেয়েও বিস্ময়কর। তার সংগ্রহে অসংখ্য মূল্যবান স্যুট রয়েছে। তাকে কখনো এক স্যুট পরিহিত অবস্থায় দুবার দেখা যায় না। এমনি মূল্যবান প্রতিটি স্যুটের দাম ৫ হাজার থেকে ৬ হাজার পাউন্ড। যা শুধু তার জন্যই তৈরি করা হয়। পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ডিজাইনার বলে খ্যাত প্রিওনী বেলভেস্ট এবং ইটালীর আবলা এবং ফ্যান্সিসকো স্মলটো ও খ্রিস্টিয়ান ডিয়রের বিশেষ ব্রান্ডের অতি মূল্যবান পোশাক-আশাক দিয়েই তার সারি সারি ওয়্যারড্রব ভর্তি। প্রিন্স মুসা বিন শমসেরের ব্যবহৃত ঘড়িতার হাতের সবচেয়ে মূল্যবান ঘড়ির ডায়াল এবং ব্রেসলেট হচ্ছে হীরক খচিত। যার মূল্য অর্ধ মিলিয়ন ডলার এবং তার সবচেয়ে মূল্যবান ঘড়ির বেল্ট, কাফলিঙ্ক-এর সেটের মূল্য ১.১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। কেবল তার জন্যই প্রস্তুতকৃত এই মূল্যবান ঘড়িটি তৈরি করা হয়েছিল ২৭ মাসেরও বেশি সময় ধরে। বিশ্ব বিখ্যাত রোলেক্স কোম্পানি এই অত্যাশ্চার্য্য ঘড়িটির প্রস্তুতকারক।

এ উপমহাদেশে তিনি শীর্ষস্থানীয় ধনাঢ্য ব্যক্তি যিনি বিলিয়ন পাউন্ড উপার্জন করছেন ট্যাঙ্ক, যুদ্ধবিমান ও ক্ষেপণাস্ত্র বেচাকেনার ব্যবসা করে। (সংগৃহীত)

লেখক পরিচিতি
অচলা
Author: অচলা
জন্মের পর থেকেই যার চারপাশে দাগ দিয়ে চলার সীমানা এঁকে দেয়া হয়েছে, বিধি-নিষেদের প্রাচীরের অভ্যন্তরেই পার হয় যার জীবন, সেই বাঁধার দেয়ালকে ভেঙে দেয়ার ইচ্ছাতেই সমমনা লোকদের যাতয়াত ক্ষেত্র বাংলা ব্লগ জগতে অচল পথিক ‘অচলা’ র পথচলা।
আমার ব্লগ সমুহ:

মন্তব্যসমুহ  

Rifat Hasan Anas
+1 # Rifat Hasan Anas 2017-07-28 22:53
গরীব হয়ে জন্মানো পাপ নয়, কিন্তু গরীব হয়ে মিত্তু বরণ করা মহা পাপ,

জীবন চাইলে ধনকুবের মহাবীর মুসা শমশেরের মতই চাই।
প্রতিউত্তর

আপনার মতামত দিন


সিকিউরিটি কোড
রিফ্রেশ